চুক্তি ছাড়াই ব্রেক্সিট হলে কী ঘটতে পারে যুক্তরাজ্যের ভাগ্যে

আনন্দ মেনন: নো ডিল ব্রেক্সিট, অর্থাৎ কোনো চুক্তি ছাড়াই ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে যুক্তরাজ্যের বেরিয়ে যাওয়ার বিষয়টি বর্তমান সময়ের সবচেয়ে আলোচিত বিষয়। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন যে আগামী ৩১ অক্টোবর যুক্তরাজ্য ইউরোপীয় ইউনিয়ন ত্যাগ করবে। তারিখটি যুক্তরাজ্যের ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ছাড়ার (ব্রেক্সিট) শেষ সময়। ওই সময়ের মধ্যে একটি নতুন ব্রেক্সিট চুক্তিতে উপনীত হতে পারলে ভালো, নতুবা প্রয়োজনে চুক্তিহীন ব্রেক্সিট করতে চাইছেন জনসন। কিন্তু এভাবে ইইউ থেকে বের হয়ে এলে কী কী ঘটতে পারে, তা কি বরিস জনসন ভেবেছেন? আমার প্রতিষ্ঠান দ্য ইউকে ইন আ চেঞ্জিং ইউরোপ বিষয়টি শনাক্ত করার চেষ্টা করেছে। গত সপ্তাহে এ বিষয়ে আমাদের একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। আমাদের এমন একদল পণ্ডিত রয়েছেন, যাঁরা যুক্তরাজ্য ও ইইউর মধ্যে সম্পর্ক নিয়ে পড়াশোনা করেছেন এবং যুক্তরাজ্য যদি এভাবে কোনো চুক্তি ছাড়াই বের হয়ে যায় তাহলে কী কী ঘটতে পারে, সে বিষয়গুলো প্রতিবেদনে তুলে ধরেছেন। ইইউর সঙ্গে কোনো রকম চুক্তি না হলে ইইউর চেয়ে যুক্তরাজ্যই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। ইইউ ছাড়ার পর ব্রাসেলসের সঙ্গে বাণিজ্য পরিচালনায় যুক্তরাজ্যকে অনেক ব্যয় ও বিধিনিষেধের মুখোমুখি হতে হবে। দেশটি ধাবিত হতে পারে অজানা গন্তব্যের দিকে।

আইনগতভাবে, যুক্তরাজ্য আর ইইউর সদস্য থাকবে না এবং ইইউর কোনো আইন তাদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না। ইইউর কাছে যুক্তরাজ্য ‘তৃতীয় দেশ’ হিসেবে বিবেচিত হবে। একটি চুক্তির অর্থ হলো একটি অন্তর্বর্তী অবস্থা, যে সময়টায় বাণিজ্য চলমান চলতে থাকবে এবং যখন উভয় পক্ষই ভবিষ্যৎ সম্পর্কের বিষয়ে আলোচনা করবে। কোনো চুক্তি না হওয়া মানে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যদেশগুলো থেকে পণ্য আমদানিতে যে শুল্কমুক্ত সুবিধা পেত যুক্তরাজ্য, সেটি আর তারা পাবে না এবং আন্তসীমান্ত বাণিজ্য নতুন নতুন বিধিনিষেধের মুখোমুখি হবে।

তাই ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে বাণিজ্য আরও কঠিন ও ব্যয়বহুল হয়ে উঠবে এবং ছোট প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য তা বিপর্যয়কর হবে। কিন্তু তবে এসব প্রত্যক্ষ প্রভাবের বাইরেও আরও অনেক কিছু ঘটতে পারে, যেগুলোর ব্যাপারে আমরা এখনো নিশ্চিত নই।

অনেক খারাপ পরিণতির আশঙ্কা রয়েছে, যেমন রাস্তা ও বিমান পরিবহন লিংকগুলোতে মারাত্মক ব্যাঘাত ঘটতে পারে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের যেসব সংস্থার সঙ্গে যুক্তরাজ্য সম্পর্কিত, যেমন ইউরোপিয়ান আদালত বা ইউরোপিয়ান পুলিশ, এ রকম অনেক সংস্থা থেকে যুক্তরাজ্যকে বের হয়ে যেতে হবে। চুক্তি ছাড়া ব্রেক্সিটের ফলে যুক্তরাজ্য তাৎক্ষণিকভাবে ইউরোপীয় ইউনিয়নের ডেটাবেইসে প্রবেশের সুযোগ হারাবে এবং ইউরোপীয় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা, শেনজেন তথ্যব্যবস্থা, ইউরোপোলসহ অন্যান্য সহযোগিতা হাতছাড়া হবে।

যুক্তরাজ্যের সাধারণ মানুষের জীবনে এর নানাবিধ প্রভাব পড়বে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোতে ভিসামুক্ত যাতায়াতের সুবিধা হারাবেন যুক্তরাজ্যের নাগরিকেরা। তার মানে, ইউরোপীয় ইউনিয়নের নানা দেশে যুক্তরাজ্যের সেসব লোকজন নানা খাতে কাজ করছেন, তাঁদের জন্য বিষয়টি কঠিন হয়ে পড়বে।

পণ্যের ওপরে শুল্ক আরোপ হলে বা বাণিজ্যে নানা সুবিধা বাতিল হলে বহু পণ্যের দাম বাড়বে। বিশেষ করে খাদ্যপণ্যের দাম বাড়লে তার প্রভাব অবশ্যই সাধারণ মানুষের ওপর পড়বে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের যেকোনো সদস্যদেশে গিয়ে স্বাস্থ্যগত কোনো সমস্যায় পড়লে ইউরোপিয়ান হেলথ ইনস্যুরেন্স কার্ড নামে একটি বিশেষ বিমাব্যবস্থার আওতায় সরকারি হাসপাতালে বিনা পয়সায় চিকিৎসার সুবিধা পান যুক্তরাজ্যের নাগরিকেরা। চুক্তিবিহীন ব্রেক্সিট হলে সেটা আর থাকবে না। যুক্তরাজ্যের যেসব নাগরিক ইউরোপীয় ইউনিয়নের নানা দেশে বাস করছেন, তাঁদের বিদেশি হিসেবে বিভিন্ন নতুন আইনের আওতায় পড়তে হতে পারে।

কোনো চুক্তি না হলে যুক্তরাজ্যে অবস্থানরত ইইউ নাগরিকদের অবস্থান কী হবে, তা স্পষ্ট নয়। তবে তাঁদের রাতারাতি অবৈধ অভিবাসীতে পরিণত হওয়ার আশঙ্কা নেই। এটা এখনো স্পষ্ট নয় যে কীভাবে নিয়োগকর্তা, বাড়িওয়ালারা তাঁদের ক্ষেত্রে নতুন বিধি প্রয়োগ করবেন।

তবে কোনো চুক্তি না হওয়াটা যুক্তরাজ্যের সঙ্গে তার বাণিজ্যের সবচেয়ে বড় অংশীদারদের এবং নিকটতম প্রতিবেশীদের সম্পর্কের অবসান ঘটাবে না। কোনো চুক্তি না হওয়ার অর্থ এই নয় যে ইইউর সঙ্গে যুক্তরাজ্যের সব ধরনের আলোচনার সম্ভাবনা শেষে হয়ে গেল, বরং আলোচনার নতুন পর্ব শুরু হবে।

দ্য গার্ডিয়ান থেকে নেওয়া, ইংরেজি থেকে অনূদিত

আনন্দ মেনন যুক্তরাজ্যের গবেষণা প্রতিষ্ঠান দ্য ইউকে ইন আ চেঞ্জিং ইউরোপের পরিচালক




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *