উল্লেখযোগ্য খবর

প্রার্থীতা ফিরে পেতে ইসিতে আপিলের ঢল

হিমালয় ডেস্কঃ প্রার্থীতা ফিরে পেতে আপিলের ঢল নেমেছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে। মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ে রেকর্ড সংখ্যক প্রার্থিতা বাতিলের বিরুদ্ধে আবেদন জমা দিতে সোমবার নির্বাচন কমিশনে (ইসি) হাজার হাজার মানুষের ভিড় জমে। আপিল আবেদনের প্রথম দিনেই সোমবার নির্বাচন কমিশনে ৮২ জন আবেদন করেছেন। এর মধ্যে প্রার্থীতা বাতিলের বিরুদ্ধে ৮১টি এবং একটি প্রার্থিতা গ্রহণের বিরুদ্ধে আবেদন রয়েছে। আবেদনকারীদের বেশিরভাগই বিএনপির প্রার্থী। বাকিরা স্বতন্ত্র প্রার্থী। মঙ্গলবার ও বুধবারও আপিল আবেদন করতে পারবেন সংক্ষুব্ধ প্রার্থীরা। আগামী ৬ থেকে ৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত এসব আপিল আবেদন নিষ্পত্তি করবে কমিশন। ইসি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, এর আগে রোববার সারাদেশে যাচাই বাছাইয়ে ৭৮৬ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তারা। বাতিল হওয়ায় প্রার্থীদের বেশিরভাগই বিএনপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থী। স্বতন্ত্র প্রার্থীদের বড় অংশই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী। বিএনপির অভিযোগ, বেছে বেছে তাদের জনপ্রিয় প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। সরেজমিনে দেখা গেছে, ইসি সচিবালয়ে সোমবার সকাল থেকে বিপুল সংখ্যক বিএনপি নেতাকর্মী ভিড় জমান। মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া অনেক প্রার্থীর সঙ্গে তাদের সমর্থকেরাও কমিশনে আসেন। তাদের সামলাতে হিমশিম খেতে হয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদেরও। বিকাল ৫টা পর্যন্ত আপিল দাখিলের সময় নির্ধারিত থাকলেও আপিলকারীদের উপস্থিতি বেশি থাকায় ১ঘণ্টা বাড়িয়ে ৬টা পর্যন্ত জমা নেয়া হয়।

ইসির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আপিলকারীদের চাপ বেশি থাকায় মঙ্গলবার প্রত্যেক বিভাগের জন্য আলাদা বুথ করা হবে। আরও জানা গেছে, প্রার্থীতা ফিরে পেতে আপিলকারীদের মধ্যে রয়েছেন-পটুয়াখালী- ৩ আসনের গোলাম মাওলা রনি, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনে নবাব মোহাম্মদ শামছুল হুদা, বগুড়া-৭ খোরশেদ মিলটন, খাগড়াছড়িতে আব্দুল ওয়াদুদ ভূঁইয়া, ঝিনাইদাহ-১ আব্দুল ওয়াহাব, ঢাকা-২০ তমিজউদ্দিন, সাতক্ষীরা-২ মোহাম্মদ আফসার আলী, কিশোরগঞ্জ-২ মো. আখতারুজ্জামান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ মো. তৈয়ব আলী, মাদারীপুর-৩ মো. আব্দুল খালেক, দিনাজপুর-২ মোকাররম হোসেন, ঝিনাইদাহ-২ অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট আব্দুল মজিদ, দিনাজপুর-৩ সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম, জামালপুর-৪ ফরিদুল কবির তালুকদার, পটুয়াখালী-৩ মো. শাহাজাহান, পটুয়াখালী-১ মো. সুমন সন্যামত, দিনাজপুর-১ পারভেজ হোসেন, মাদারীপুর-১ জহিরুল ইসলাম মিন্টু, সিলেট-৩ কাইয়ুম চৌধুরী, ঠাকুগাঁও-৩ এসএম খলিলুর রহমান ও জয়পুরট-১ আসনে মো. ফজলুর রহমান প্রমুখ।

জানা গেছে, এক শতাংশ ভোটার না থাকা, লাভজনক পদে থাকা, হলফনামায় স্বাক্ষর না থাকা, আয়কর রিটার্ন দাখিল না করা, ঋণখেলাপি ও দণ্ডপ্রাপ্তসহ বিভিন্ন কারণে মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

প্রার্থীতা ফিরে পেতে আপিল দায়ের করে বিএনপি নেতা মীর নাছির উদ্দীন আহমদ অভিযোগ করেন, সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে তার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

তিনি বলেন, সরকারের চাপে রিটার্নিং কর্মকর্তা মনোনয়নপত্র বাতিল করতে বাধ্য হয়েছেন। আপিলে প্রার্থীতা ফিরে পাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

আরেক প্রার্থী গোলাম মওলা রনি বলেন, সামান্য ভুলের কারণে বাতিল হয়েছে। এটি বাতিলের মতো ভুল ছিল না, যেখানে ইসি থেকে ছোট ভুলে জন্য বাতিল না নির্দেশনা দিয়েছে। ফলে আশাবাদী। কমিশনের প্রতি আস্থা আছে। আশা করি, আমি নির্বাচন করার সুযোগ পাব।

তবে আপিল না করলেও এ বিষয়ে তথ্য জানতে সোমবার কমিশনে এসেছিলেন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, যে অজুহাতে আমার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে, তাতে মনে হয় না কারও মনোনয়নপত্র টিকবে। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে যারা মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন, তাদের সবার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে বিভিন্ন অজুহাতে।

এদিকে আপিল করতে ইসিতে এসে বগুড়া-৪ আসনে আলোচিত স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফুল হোসেন ওরফে হিরো আলম বলেছেন, মনোনয়নপত্রে কোনো ভুল না থাকার পরও ষড়যন্ত্র করে তাকে থামানোর চেষ্টা করা হয়েছে।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, জিরো থেকে হিরো হয়েছি। ষড়যন্ত্র করে আমাকে থামানোর চেষ্টা চলছে। এমপি-মন্ত্রীরা চায় না প্রজারাও রাজা হোক। ভোট যুদ্ধে শেষ পর্যন্ত লড়াই করে যাব। কমিশনে আপিল করেছি, আশা করছি নির্বাচনে অংশ নেয়ার সুযোগ পাব।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার তিনটিসহ মোট ৭৮৬জনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়। বর্তমানে প্রার্থী সংখ্যা ২ হাজার ২৭৯ জন। গত ২৮ নভেম্বর ৩০০ আসনে ৩ হাজার ৬৫ জন মনোনয়নপত্র জমা পড়েছিল। এর মধ্যে ৩৯টি রাজনৈতিক দলের প্রার্থী সংখ্যা ২ হাজার ৫৬৭জন ও বাকি ৪৯৮জন স্বতন্ত্র।




One thought on “প্রার্থীতা ফিরে পেতে ইসিতে আপিলের ঢল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *